Archive for the ‘অর্থ ও বাণিজ্য’ Category

বেনাপোলে ইলিশ জব্দ

Monday, September 30th, 2013

fffffffনিউজ বিএনএন ডটকম: ভারতে পাচারের সময় বেনাপোল সীমান্ত থেকে সাড়ে সাতশ’ কেজি ইলিশ মাছ জব্দ করেছে বিজিবি।
সোমবার ভোরের দিকে গাতিপাড়া সীমান্ত থেকে মাছগুলো উদ্ধার করা হয়।
খুলনা ২৩ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল তায়েফ উল হক বলেন, ইলিশ রপ্তানি বন্ধ থাকায় বেনাপোল চেকপোস্টের দক্ষিণে গাতিপাড়া সীমান্ত দিয়ে ভারতে ৭৫০ কেজি ইলিশ মাছ পাচার হচ্ছিল। বিজিবির দৌলতপুর বিওপির টহল দল মাছগুলো আটক করে।
মাছগুলো কাস্টমসের শুল্ক গুদামে জমা দেয়া হয়েছে বলে বিজিবি এ কর্মকর্তা জানান

রমজানের শুরুতেই পণ্যমূল্য লাগামছাড়া

Friday, July 12th, 2013

tttনিউজবিএনএন ডটকম: রমজানের শুরুতেই রাজধানীর বাজারের প্রায় সব পণ্যের দাম বেশ চড়া। পেঁয়াজ ও কাঁচামরিচ থেকে শুরু করে কাঁচা সবজি, মাছ, মাংসসহ প্রায় সব পণ্যের দামই বেড়েছে।

সব চেয়ে বেশি বেড়েছে পেঁয়াজ ও কাঁচা মরিচের দাম।গত তিন সপ্তাহ ধরে পেঁয়াজ ও কাঁচা মরিচের দাম বেড়েই চলছে। গত এক সপ্তাহ আগে আমদানি করা যে পেঁয়াজ ২৮ থেকে ৩০ টাকায় পাওয়া যেতো।বর্তমানে ওই পেঁয়াজ ৪০ থেকে ৪৫ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। আবার কোথাও কোথাও ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।গত সপ্তাহে কাঁচা মরিচের দাম ছিল ১৬০ থেকে ১৭০ টাকা। রমজানের শুরুতেই এর দাম বেড়ে হয়েছে ২০০ টাকা প্রতি কেজি।

ইফতারে চাহিদা বাড়ার কারণে বেড়েছে বেগুন ও টমেটোর দাম। গত সপ্তাহে টমেটোর দাম ছিল ৫৫-৬০ টাকা। এ সপ্তাহে দাম বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৯০-১০০ টাকা। বেগুন ৫০ টাকা থেকে বেড়ে ৫৫ থেকে ৬০ টাকা।

শুক্রবার সকালে রাজধানীর হাতিরপুল কাঁচা বাজার ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

এছাড়া রমজানের প্রথম সপ্তাহে বাজারে চাল, ডাল ও তেলের দাম দাম অপরিবর্তিত থাকলেও রমজান উপলক্ষে বেড়েছে সকল প্রকার মাংসের দাম। মাংসের বাজারে দেখা যায়, ব্রয়লার মুরগি কেজিপ্রতি ১৬০ টাকা থেকে বিক্রি ১৮০ টাকা দরে। লেয়ার মুরগি ১৫৫ টাকা, দেশী মুরগির দামও বেড়ছে কেজিতে ২০ থেকে ২৫ টাকা পর্যন্ত। গরুর মাংস কেজি ২৮০ টাকা থেকে বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৩০০ টাকায়। খাসির মাংস কেজিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকায়।

বয়লার মুরগির ডিম প্রতি হালি ৩৫ টাকা, দেশী হাঁস তিন টাকা বেড়ে ৩৮ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। দেশি মুরগি ৪৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে বাজারে পেঁপে, পটল ও শসা, কচুর লতি, কচুর মুখি, করলা, বরবটি, চিচিঙ্গা, ঝিঙ্গা, গাজর, কাকরোল, মুলা কেজিপ্রতি ৩৫ থেকে ৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। আলু ১৬ টাকা, লেবু হালিপ্রতি ২০ থেকে ২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ধনিয়া পাতা কেজিপ্রতি ২০০ টাকা, পুদিনা পাতা আটি প্রতি ১৫ থেকে ২০ টাকা, প্রতিপিস ফুল কপি ৫০ টাকা, বাঁধাকপি প্রতিপিস ৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মিষ্টিকুমড়া ও চালকুমড়ার দাম আকারভেদে ৩০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মাছের বাজারও কিছুটা চড়া। কেজিপ্রতি কৈ আকারভেদে ১৬০ থেকে ২৮০ টাকা, পাঙ্গাস ১৩০ থেকে ১৬০ টাকা, শিং আকারভেদে ৩৫০ থেকে ৭০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কেজিপ্রতি চিংড়ি ৪০০ থেকে ৮০০ টাকা, তেলাপিয়া ১৭০ থেকে ২০০ টাকা, রুই কেজিপ্রতি ১৮০ থেকে ২৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া চায়না আদা ৮৫ থেকে ৯০ টাকায় ও চায়না বড় রসুন ৬৫ টাকায়। দেশি পেঁয়াজ ৪২ থেকে ৪৪ টাকা, ভারতীয় পেঁয়াজ ৩৫ থেকে ৩৮ টাকা, দেশী রসুন ৮০ টাকা, দেশী আদা ১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বাজার করতে আসা ক্রেতাদের অভিযোগ রমজানকে সমানে রখেই মূলত বাড়ানো হয়েছে প্রায় সকল প্রকার পণ্যের দাম।

রাজধানীর হাতিরপুল কাঁচা বাজারে বাজার করতে আসা সিহাব আলী জানান, “রমজানের শুরুতেই বাজারে সবকিছুর দাম বাড়ানো হয়েছে। সরকার রমজানে পণ্যের দাম না বাড়ানোর কথা বলেছে। কিন্তু আমরা তো বাজার করতে এসে উল্টো চিত্র দেখছি। এখনই সব কিছূর দাম অনেক বেড়েছে।”

বাজারে পণ্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকারের তেমন কোনো পর্যবেক্ষণও নেই বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

তবে দাম বৃদ্ধির কারণ প্রসঙ্গে বিক্রেতারা বলছেন, দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বন্যায় কাঁচা সবজির কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। যার ফলে ঢাকার বাইরে থেকে বেশি কাঁচা সবজি ঢাকায় আসতে পারেনি। এছাড়াও পানি লেগে অনেক মরিচ নষ্ট হয়েছে। ফলে বাজারে চাহিদার তুলনায় সরবরাহ কমে যাওয়ায় কাঁচা মরিচের দাম বেড়েছে।

সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতার চলছে লেনদেন

Wednesday, July 10th, 2013

DSeনিউজবিএনএন ডটকম: সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতার মধ্য দিয়ে সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবসে বুধবার দেশের দুই পুঁজিবাজারে লেনদেন শুরু হয়েছে।

বেড়েছে লেনদেন হওয়া বেশির ভাগ শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের দাম।

বুধবার সকাল ১১টা পর্যন্ত ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) মোট হাতবদল হয়েছে ২২৫টি শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড।এর মধ্যে দাম বেড়েছে ১৫৯টির, কমেছে ৫৯টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৭টি শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের দাম।

আর প্রথম আধাঘণ্টায় ডিএসই সাধারণ সূচক আগের দিনের চেয়ে ১৪১ পয়েন্ট বেড়ে হয়েছে ৪ হাজার ৮২৫ পয়েন্ট। মোট লেনদেন হয়েছে ২১১ কোটি ৭০ লাখ টাকারও বেশি।

অন্যদিকে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) বুধবার সকাল ১১টা পর্যন্ত হাতবদল হয়েছে ১২০টি শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড।এর মধ্যে দাম বেড়েছে ৭৩টির, কমেছে ৩৯টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৮টি শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের দাম।

আর প্রথম আধাঘণ্টায় সিএসই ৩০ সূচক আগের দিনের চেয়ে ২৬২ পয়েন্ট বেড়ে হয়েছে ১১ হাজার ৬৯৩ পয়েন্ট। মোট লেনদেন হয়েছে ১৩ কোটি ৫৭ লাখ টাকারও বেশি।সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবসে মঙ্গলবার দেশের দুই পুঁজিবাজারে ১৩শ’ কোটি টাকার বেশি লেনদেন হয়।

সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় লেনদেন শুরু

Monday, July 8th, 2013

DSeনিউজবিএনএন ডটকম: চলতি সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস সোমবার দেশের দুই পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও  চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় লেনদেন শুরু হয়েছে।

লেনদেন শুরুতেই লেনদেন হওয়া অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের দাম বেড়েছে। রবিবার উভয় পুঁজিবাজারেই সূচক বাড়লেও কিছুটা কমেছিল মোট লেনদেন।

ডিএসইর ওয়েব সূত্রে দেখা যায়,  সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে ডিএসইর সাধারণ সূচক ১৫ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ৫৭৩ পয়েন্টে এবং ডিএসইএক্স সূচক ১  পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ৯২৭ পয়েন্টে, তবে  ডিএসই ৩০ সূচক ১ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৫৯৭ পয়েন্টে আসে। এ সময় পর্যন্ত লেনদেন হওয়া ২০০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ৮৮টির, কমেছে ৮১ টির এবং অপরিবর্তিত থাকে ৩১টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এ সময় মোট লেনদেন হয় ৮০ কোটি ২৭ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

অন্যদিকে সকাল ১০ টা ৪৬ মিনিটে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ মূল্য সূচক ৩০ পয়েন্ট কমে ৮ হাজার ৪৪৬ পয়েন্টে আসে। এ সময় পর্যন্ত লেনদেন হওয়া ৭৫টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ৩৪টির, কমেছে ৩০টির এবং  অপরিবর্তিত থাকে ১১টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এ সময়ে সিএসইতে মোট লেনদেন হয় ৪ কোটি ২৪ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

রমজানে ব্যাংক লেনদেনের সময়সূচি

Thursday, July 4th, 2013

bankনিউজবিএনএন ডটকম: আসন্ন রমজানে ব্যাংক লেনদেনের সময়সূচি নির্ধারণ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার সকালে সার্কুলার জারি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অফ-সাইট সুপারভিশন বিভাগ। সেটি সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীর কাছে পাঠানোও হয়েছে।

সার্কুলারে বলা হয়েছে, রমজানে ব্যাংকের অফিসসূচি হবে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে বিকাল ৪টা। লেনদেন চলবে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত।

এতে জানানো হয়েছে,  দুপুর সোয়া ১টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত জোহরের নামাজের বিরতি থাকবে। তবে অভ্যন্তরীণ সমন্বয়ের মাধ্যেম এ সময়ও লেনদেন অব্যাহত রাখতে হবে।

সার্কুলারে জানানো হয়েছে, রমজান শেষে পুরোনো সূচি- সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ব্যাংক খোলা থাকবে। লেনদেন চলবে সকাল ১০টা থেকে ৪টা পর্যন্ত।

সূচক বেড়ে লেনদেন চলছে

Wednesday, July 3rd, 2013

DSEনিউজবিএনএন ডটকম:  দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবস বুধবার মূল্যসূচক বেড়ে লেনদেন শুরু হয়েছে।

ডিএসইর ওয়েবসাইট সূত্রে জানা গেছে, লেনদেন শুরুর পাঁচ মিনিট পর সকাল ১০টা ৩৫ মিনিটে ডিএসই’র সাধারণ সূচক প্রায় ২৩ পয়েন্ট বাড়ে। এরপর ১০টা ৪০ মিনিটে সূচক ২৬ পয়েন্ট বাড়ে, ১০টা ৪৫ মিনিটে সূচক ৩০ পয়েন্ট বাড়ে, ১০টা ৫০ মিনিটে সূচক ৩৪ পয়েন্ট বাড়ে। বেলা ১২টা ১৫ মিনিটে সূচক দাঁড়ায় ৪ হাজার ৫৩০ পয়েন্টে।

বেলা ১২টা পর্যন্ত ডিএসইএক্স সূচক ২৮ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করে ৪ হাজার ২৫২ পয়েন্টে এবং ডিএসই-৩০ সূচক প্রায় ১৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করে ১ হাজার ৫৯১ পয়েন্টে।

এ সময় পর্যন্ত ডিএসইতে ১১৭টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম বেড়েছে। লেনদেন হয়েছে মোট ৩৭৬ কোটি  টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট।

সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবনতায় লেনদেন শুরু

Tuesday, July 2nd, 2013

DSeনিউজবিএনএন ডটকম: চলতি সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবস মঙ্গলবার দেশের দুই পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় লেনদেন শুরু হয়েছে। লেনদেন শুরুর এক ঘণ্টার মাথায় লেনদেন হওয়া অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের দাম বেড়েছে।

সোমবার ১ জুলাই বাৎসরিক ব্যাংক হলি ডে উপলক্ষে দুই পুঁজিবাজারেই লেনদেন বন্ধ ছিল।

ডিএসইর ওয়েব সূত্রে দেখা যায়, বেলা ১১টা ২৮ মিনিটে ডিএসইর সাধারণ সূচক ৯৩ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ৪৭৮ পয়েন্টে আসে এবং ডিএসইএক্স সূচক ৯৫ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ১৯৯ পয়েন্টে, ডিএসই ৩০ সূচক ২৯ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৫৬১ পয়েন্টে আসে। এ সময় পর্যন্ত লেনদেন হওয়া ২৩১টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ২১১টির, কমেছে ১০টির এবং অপরিবর্তিত থাকে ১০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এ সময় মোট লেনদেন হয় ২২৩ কোটি ৩০ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

অন্যদিকে একই সময়ে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ মূল্য সূচক ১৪৬ পয়েন্ট কমে ৮ হাজার ২১৭ পয়েন্টে আসে। এ সময় পর্যন্ত লেনদেন হওয়া ১২৭টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ১০৪টির, কমেছে ১৪টির এবং  অপরিবর্তিত থাকে ৯টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এ সময়ে সিএসইতে মোট লেনদেন হয় ১৫ কোটি ৮৪ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

সূচকের ওঠানামায় লেনদেন শুরু

Sunday, June 30th, 2013

DSeনিউজবিএনএন ডটকম: চলতি সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবস রবিবার দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচকের ওঠানামায় লেনদেন চলছে।  তবে চট্টগ্রাম স্টক একচেঞ্জে (সিএসই) সূচক নিম্নমুখী রয়েছে। লেনদেন হওয়া অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দামও কমেছে।

ডিএসই’র ওয়েব সূত্রে দেখা যায়, বেলা ১১ টা ২ মিনিটে ডিএসইর সাধারণ সূচক ১০ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ৪৩৬ পয়েন্টে আসে এবং ডিএসইএক্স সূচক ২ পয়েন্ট বেড়ে ৪ হাজার ১৫১ পয়েন্টে, ডিএসই৩০ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৫৫০ পয়েন্টে আসে। এসময় পর্যন্ত লেনদেন হওয়া ১৯২ টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ৭১ টির, কমেছে ১০৩ টির এবং অপরিবর্তিত থাকে ১৮টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড। এসময় মোট লেনদেন হয় ৯২ কোটি ৭৪ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

অন্যদিকে, একই সময়ে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ মূল্য সূচক ২০ পয়েন্ট কমে ৮ হাজার ১৩০ পয়েন্টে আসে। এসময় পর্যন্ত লেনদেন হওয়া ৯৭টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ২১টির, কমেছে ৬৫ টির এবং অপরিবর্তিত থাকে ১১ টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ড। এ সময়ে সিএসইতে মোট লেনদেন হয় ৭ কোটি ১৫ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

শেয়ার বাজারে স্থিতিশীলতার আভাস,ফেসবুকে কারসাজিচক্র সক্রিয়

Saturday, June 29th, 2013

mnnnnহবিগঞ্জ প্রতিনিধি /অর্থনৈতিক রিপোর্টারঃ- দেশের শেয়ার বাজার ঘুরে দাঁড়াতে না দাঁড়াতেই কারসাজি চক্র সক্রিয় হয়ে উঠেছে । তারা ফেসবুক,এসএমএস ও বিভিন্ন ব্রোকারেজ হাউজে গুজব ছড়িয়ে শেয়ার দর উঠানামার ক্ষেত্রে প্রভাব বিস্তার করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা যায়, ২০১০ সালের ৬ই ডিসেম্বর থেকে দেশের উভয় শেয়ারবাজারে বড়ধরনের পতন শুরু হয়। বাজার মূল্য সংশোধনের নামে পতন দীর্ঘায়িত হওয়ায় দিনদিন বিনিয়োগকারীদের মধ্যে ক্ষোভ বাড়তে থাকে। ফলে ক্ষুদ্র বিনিযোগকারীদের হাউজ ছেড়ে কারসাজি বন্ধ করে বাজার ঠিক করার দাবীতে রাস্তায় নেমে ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটতে দেখা যায়। এনিয়ে  সরকারও উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ে। বাজার সংশ্লিষ্টদের নিয়ে দফায় দফায় অর্থমন্ত্রনালয়ে বৈঠক করে এমনকি প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে বিশেষ প্রনোদনা ঘোষণা করেও বাজারকে উর্ধ্বমূখী ধারায় ফেরানো সম্ভব হয়নি। যে কারণে কয়েকজন বিনিয়োগকারী পূঁজি হারিয়ে আত্বাহুতি দিতে বাধ্য হয়েছেন। যা নিয়ে দেশবিদেশে নানা আলোচনা সমালোচনা করতে দেখা গেছে। ফলে বর্তমান সরকারের ব্যর্থতার তালিকায় শেয়ার বাজারের পতন অন্যতম বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। দীর্ঘ আড়াই বছর পর ২০১৩-২০১৪ অর্থবছরের বাজেট ঘোষনাকে কেন্দ্র করে জুন মাসজুড়ে দেশের উভয় শেয়ার বাজার উর্ধ্বমূখী ধারায় ফিরেছে। বাজারে এই উর্ধ্বমূখীতার সুযোগে একটি কারসাজিচক্র নানা কৌশলে ফায়দা হাসিলে মেতে উঠেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগে প্রকাশ, একটি চক্র ফেসবুকে শেয়ার বাজার সংক্রান্ত বিভিন্ন পেজ বা গ্র“প খুলে গুটি কয়েক কোম্পানীর নেতিবাচক গুজব ছড়িয়ে শেয়ার হাতিয়ে নেয় এবং পরে ইতিবাচক গুজব ছড়িয়ে প্রলোভন দিয়ে উচ্চ দরে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে শেয়ার ধরিয়ে দিয়ে ওই শেয়ার থেকে সট্কে পড়ে। প্রলোভনে পরে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা উচ্চ দরে ওই শেয়ার ক্রয় করার সাথে সাথেই দর হারাতে থাকে ফলে তারা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখিন হয়ে থাকেন। এব্যাপারে অনুসন্ধান করতে গিয়ে ফেসবুকে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের বিনিয়োগকারীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, সামাজিক যোগাযোগ ওয়েবসাইট ফেসবুকে বিডি স্টক ডিস্কাশন,খুলনা শেয়ার হোল্ডার,ঢাকা স্টক এক্সচেন্জ রেহমান,আইপিও ইনফো বিডি,উইকলি এনালাইসিস,বিডি স্টক মার্কেট,পোর্টয়োলিও ম্যনেজম্যান্ট,ইউর পোর্টফোলিও সেফগার্ড,স্টক অনলি ট্রেড এন্ড প্রফিট সহ স্টক মার্কেট সম্পর্কিত শতাধিক পেজ ও গ্র“প রয়েছে। ওইসব পেজ বা গ্র“পে এডমিনদের হাতে থাকা আইটেমের চটকধারী বিজ্ঞাপন দিয়ে বিনিয়োগকারীদের বিভ্রান্ত করে ফায়দা হাসিল করে বলে জানিয়েছেন ফেসবুকে সক্রিও ভুক্তভোগী বিনিয়োগকারীরা। ফেসবুকে সক্রিও অভিজ্ঞ বিনিয়োগকারীদের সাথে এ প্রতিনিধির কথা হলে তারা জানান, ওইসব পেজ বা গ্র“পের এডমিনদের বাজার সম্পর্কে মোটেও কোন ধারণা নেই মূলত ইন্টারনেট ভাল জানে বলেই গ্র“প খুলে পন্ডিতি করছে যার ফলে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে সরল সহজ বিনিয়োগকারীরা। ফেসবুকে বিনিয়োগকারীদের সাথে কথা বলে বিডি স্টক ডিসকাশন ডিএসই প্লাস সিএসই পেজের বিরোদ্ধ শতাধিক প্রতারনার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই পেজের এডমিন একেকদিন একেক আইটেমের চটকধারী বিজ্ঞাপন দিয়ে বিনিয়োগকারীদেরকে প্রলোভন দেখিয়ে তার দেয়া আইটেম কিনতে উৎসাহিত করেন কিন্তু বিনিয়োগকারীরা না বুজে তার কথায় কিনে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছেন। তবে বাজার বিশ্লেষক সৈয়দ কামরুল আহসানের স্টক কামরুল গ্র“পের মাধ্যমে অনেকেই বিশাল উপকৃত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এব্যাপারে সিলেটের বিনিয়োগকারী মোশাহিদ,রতন,আরিফ ঢাকা মতিঝিলের বিনিয়োগকারী সিরাজ,সাইফ,কোখন,রাসেল ও খুলনার বিনিয়োগকারী বিলাল.রুবেল,আসিকসহ ফেসবুকে প্রায় অর্ধশতাধিক বিনিয়োগকারীর সাথে আলাপকালে স্টক কামরুল গ্র“পের ব্যাপরে ভিন্নমত পোষন করেন। তাদের অধিকাংশই ওই গ্র“পের মাধ্যমে ক্ষতি পুষিয়ে বর্তমানে অনেক লাভে আছেন বলে গুনগান করতে দেখা যায়। সম্প্রতি স্টক কামরুল গ্র“পে কোন আপডেট না দেয়ায় অনেকেই তার গ্র“পের কমেন্টে হতাশা প্রকাশ করতে দেখা গেছে। এদিকে বিএসইসি ও ডিএসই পক্ষ থেকে ফেসবুক বা অন্য কোন অসমর্থিত তথ্যের ভিত্তিতে বিনিয়োগ থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিলেও ফেসবুকে সক্রিয় বিনিয়োগকারীরা ওইসব পেজ বা গ্র“পের কারসাজিচক্রের ফাদে পড়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন বলে জানা গেছে। এব্যাপারে বিনিয়োগকারীদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা।

আবারো কমেছে স্বর্ণের দাম

Friday, June 28th, 2013

sarনিউজবিএনএন ডেস্ক: বিশ্ব বাজারে ফের কমেছে স্বর্ণের দাম। তিন বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন হয়েছে স্বর্ণের দাম। নিউ ইয়র্কে বৃহস্পতিবার স্বর্ণের দাম প্রতি আউন্সে এক হাজার ১৯১.২১ মার্কিন ডলার কমেছে। ২০১০ সালের আগস্টের পর এই প্রথম স্বর্ণের দাম এতো কমল।

এদিকে, স্বর্ণের দাম আরো কমতে পারে বলে বিশ্লেষকরা মনে করছে।

অবশ্য বিগত বছরগুলোতে স্বর্ণের দাম ক্রমাগত বাড়ছিল। এজন্য দুইটি বিষয়কে দায়ি করেছে বিশ্লেষকরা।

প্রথম কারণ হলো, বিশ্বজুড়ে চলা অর্থনৈতিক মন্দা এবং ইউরোজোন সংকট।

অর্থনৈতিক মন্দার কারণে বিনিয়োগকারীরা টাকার চেয়ে স্বর্ণকেই বেশি নিরাপদ মনে করে স্বর্ণ কিনে রাখছিলেন। ফলে স্বর্ণের দামও বেড়ে গিয়েছিল।

অন্যদিকে, অর্থনৈতিক মন্দার কারণে ব্যাংকগুলোও টাকা রাখার ক্ষেত্রে কম সুদ দিচ্ছিল। তাই, বিনিয়োগকারীরা স্বর্ণকেই লাভজনক মনে করে স্বর্ণ কিনে রাখায় স্বর্ণের দাম বেড়ে গিয়েছিল।

তবে, গত কয়েকমাস ধরে বিনিয়োগকারীদের এই মনোভাবের পরিবর্তন হচ্ছে।

কারণ, আমেরিকা বেশ কয়েক বছর ধরে চলা অর্থনৈতিক মন্দা কাটিয়ে উঠছে।  মার্কিন কেন্দ্রীয় ব্যাংক বন্ড কেনার ক্ষেত্রে টাকার হারও বাড়িয়ে দিয়েছে বলে ব্যাংকের চেয়ারম্যান বেন বার্নানকি জানিয়েছেন।

মার্কিন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই পদক্ষেপের ফলে ব্যাংকে টাকা জমা রাখার ক্ষেত্রে সুদেরও হারও বেড়ে গেছে বলে জানিয়েছেন বিশ্লেষকরা। তাই স্বর্ণের বাজারও পড়ে যাচ্ছে বলে মনে করছেন তারা।

একইসঙ্গে ইউরোজোন সংকটও কমে যাচ্ছে, যা স্বর্ণের দাম কমার ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলছে।

এসব কারণে স্বর্ণের দাম ভবিষ্যতে আরো কমতে পারে বলে ধারণা করছে বিশ্লেষকরা। সূত্র: বিবিসি

 

ফোন : +৮৮ ০২ ৯৬১ ৩৯৪২-৩, ফ্যাক্স : +৮৮ ০২ ৮৬৫ ৩৪৬৫, মোবাইল : +৮৮ ০১৭১১ ৫২৯৯২৩, +৮৮ ০১৯২১ ০৭৬৪২৯, + ৮৮ ০১৯২৩ ৩৬৮২৯১ ।
 ইমেইল : 
newsbnn@gmail.com , editor@newsbnn.com, info@newsbnn.com,  ওয়েব : www.newsbnn.com

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো:মাহাবুবুর রহমান